সমাজকর্মের একটি লক্ষ্য ব্যাখ্যা কর?

উদ্দীপকঃ-

=> আল মামুন উচ্চ শিক্ষিত যুবক। তিনি নিজ এলাকার গ্রামীণ দরিদ্র জনগোষ্ঠীর উন্নয়নে কাজ করতে চান। তিনি এ লক্ষ্যে তার, এলাকার ওপর একটি জরিপ গবেষণা কার্যক্রম পরিচালনা করেন। জরিপ গবেষণার ফলাফলে তিনি লক্ষ করেন নিরক্ষরতা ও সম্পদের অপ্রতুলতা এলাকার উন্নয়নের মূল প্রতিবন্ধকতা। তিনি এ সমস্যা উত্তরণে একজন পেশাদার সমাজকর্মীর সাথে পরামর্শ করে একটি সমাধান পরিকল্পনা করেন।

প্রশ্ন-

ক. সমাজকর্ম ধারণার ওপর একজন সমাজবিজ্ঞানী প্রদত্ত সংজ্ঞা লিখ।

খ. সমাজকর্মের একটি লক্ষ্য ব্যাখ্যা কর?

গ. আল মামুন তার নিজ এলাকার সমস্যা উত্তরণে সমাজকর্মের কোন ক্ষেত্রসমূহ বিবেচনায় রেখে পরিকল্পনা করতে পারেন? ব্যাখ্যা করো।

ঘ. আল মামুনের জরিপ গবেষণায় প্রাপ্ত ফলাফলের প্রতিবন্ধকতা উত্তরণে সমাজকর্ম শিক্ষার গুরুত্ব বিশ্লেষণ করো।

প্রশ্নের উত্তরঃ-

ক) ডব্লিউ এ ফ্রিডল্যান্ডার সমাজকর্মের সংজ্ঞায় বলেন, “সমাজকর্ম বৈজ্ঞানিক জ্ঞান ও মানবিক সম্পর্ক বিষয়ক দক্ষতাসম্পন্ন এমন একটি পেশাদার সেবাকর্ম যা ব্যক্তিকে একক বা দলীয়ভাবে সামাজিক ও ব্যক্তিগত সন্তুষ্টি ও স্বাধীনতা লাভে সহায়তা করে।”

 

খ) সমাজকর্মের একটি গুরুত্বপূর্ণ লক্ষ্য হলো ব্যক্তি, দল ও সমষ্টির সামগ্রিক কল্যাণ সাধন করা।

সমাজকর্ম একটি সাহায্যকারী প্রক্রিয়া। এটি সাহায্যার্থী তথা ব্যক্তি, দল বা সমষ্টির সম্পদের সর্বোচ্চ ব্যবহার নিশ্চিত করে। সেই সাথে দৈহিক, মানসিক, অর্থনৈতিক ও সামাজিক দিক দিয়ে সাহায্যার্থীকে মঙ্গলজনক অবস্থানে নিয়ে যেতে সর্বতোভাবে সহায়তা করে। অর্থাৎ সমাজকর্মের মূল লক্ষ্যই হলো মানুষের সার্বিক কল্যাণ সাধন। আর এ লক্ষ্য অর্জন করতে সমাজকর্ম নানামুখী কর্মসূচি বাস্তবায়ন করে।

 

গ) আল মামুন তার নিজ এলাকার সমস্যা উত্তরণে সমাজকল্যাণ কর্মসূচি বিবেচনায় রেখে পরিকল্পনা প্রণয়ন করতে পারেন। সমাজকল্যাণ কর্মসূচি প্রণয়নের মাধ্যমে আমাদের সমাজে বিদ্যমান। বহুমুখী জটিল সমস্যাগুলো সমাধান করা সম্ভব। এক্ষেত্রে এসব কর্মসূচি আমাদের বৃহত্তর সমাজে বসবাসরত মানুষের মূল্যবোধ ও সংস্কৃতির সাথে সংগতিপূর্ণ হওয়া যৌক্তিক। আর এ বিষয়গুলো সমাজকর্মের পরিধিভুক্ত। সমাজে বিদ্যমান মূল্যবোধ এবং সংস্কৃতির মধ্যে বিদ্যমান। দ্বন্দ্ব ও মিথস্ক্রিয়ার কারণে বহুমুখী সমস্যার সৃষ্টি হয়। এসব সমস্যা সমাধানে সামাজিক নীতিকে জনগণের জন্য সেবা উপযোগী করে তুলতে বিভিন্ন কর্মসূচি গ্রহণ করতে হয়। আর এসব কর্মসূচিই হলো সমাজকল্যাণ কর্মসূচি।উদ্দীপকে দেখা যায়, আল মামুন নিজ এলাকায় দরিদ্র জনগোষ্ঠীর জীবনমান উন্নয়নে কাজ করতে চান। তার এলাকার প্রধান প্রতিবন্ধকতা হলো নিরক্ষরতা ও সম্পদের অপ্রতুলতা। এক্ষেত্রে আল মামুন সমাজকল্যাণের বিভিন্ন কর্মসূচি যেমন গ্রামীণ সমাজসেবা কর্মসূচির অন্তর্ভুক্ত বৃত্তিমূলক ও আয় বৃদ্ধিমূলক সুদমুক্ত ঋণ কার্যক্রম গ্রহণ করতে পারেন। এছাড়া দক্ষ কর্মী তৈরির মাধ্যমে সামাজিক উন্নয়নকে এগিয়ে নিতে পারেন। এছাড়াও সমবায়, কৃষি উন্নয়ন, বয়স্ক ও সামাজিক শিক্ষামূলক ক্ষেত্রভিত্তিক কর্মসূচি গ্রহণ ও বাস্তবায়ন করে নিজ এলাকার সমস্যা উত্তরণে ভূমিকা রাখতে পারেন।

 

ঘ) আল মামুনের জরিপ গবেষণায় প্রাপ্ত ফলাফলের প্রতিবন্ধকতা উত্তরণে সমাজকর্ম শিক্ষার গুরুত্ব অপরিসীম।

সমাজকর্ম সমাজের নানাবিধ আর্থ-সামাজিক সমস্যা মোকাবিলায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে থাকে। আল মামুনের এলাকায় উন্নয়নের মূল প্রতিবন্ধকতা হিসেবে নিরক্ষরতা ও সীমিত সম্পদের দিকটি উঠে এসেছে। এক্ষেত্রে সমাজকর্মের মৌলিক শিক্ষার প্রয়োগ সমস্যা মোকাবিলায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে পারে। সমাজকর্ম সমাজে বসবাসরত মানুষের আচরণ, সামাজিক নীতি, মূল্যবোধ, সংস্কৃতি, সামাজিক সমস্যার কারণ, প্রভাব, ব্যাপ্তি ও পরিবেশের মধ্যকার সম্পর্কের উন্নয়ন প্রভৃতি নিয়ে গবেষণা করে। সমাজে বহুমুখী সমস্যা বিদ্যমান। এসব সমস্যার প্রকৃতি, বিস্তৃতি সম্পর্কে গভীর তথ্য অনুসন্ধানের জন্য সমাজকর্ম গবেষণার জ্ঞান অপরিহার্য। সমাজকর্ম তাত্ত্বিক জ্ঞান বাস্তবে প্রয়োগ করে মানুষের সর্বাধিক কল্যাণ সাধনের চেষ্টা করে। এক্ষেত্রে সামাজিক নীতি ও পরিকল্পনা যাতে দেশের জনগণের চাহিদাকেন্দ্রিক হয়, সমাজকর্ম সে বিষয়টিকে গুরুত্ব প্রদান করে।

সমাজ, সমাজের মানুষের চাহিদা, সামাজিক সমস্যা, সম্পদ এবং উন্নয়ন প্রক্রিয়া সম্পর্কে পর্যাপ্ত জ্ঞান না থাকলে সুষ্ঠু সামাজিক নীতি ও পরিকল্পনা প্রণয়ন সম্ভব নয়। আর সমাজকর্মের মাধ্যমে আমরা এ বিষয়গুলো সম্পর্কে জ্ঞাত হতে পারি। তাই আল মামুনের এলাকার সমস্যা উত্তরণে সমাজকর্মের শিক্ষা গ্রহণ করে এলাকার উন্নয়ন ত্বরান্বিত করা সম্ভব।

সমাজকর্ম শিক্ষার প্রয়োজনীয়তা কী?