ব্লগার থেকে টাকা ইনকাম করার সহজ উপায়

ব্লগার থেকে টাকা ইনকাম করার সহজ উপায়

ব্লগার থেকে টাকা ইনকাম করা খুব সহজ আবার খুব কঠিন। কারণ আপনার যদি লেখালেখির অভ্যাস থাকে তাহলে এটা আপনার জন্য বেস্ট। আপনি এখান থেকে সহজেই প্যাসিভ ইনকাম করতে পারবেন। কিভাবে মাসে ব্লগার থেকে ১৫-২০ হাজার টাকা ইনকাম করা যায় সেই বিষয়টি আলোচনা করব। ব্লগার থেকে টাকা ইনকাম করার সহজ উপায় জেনে নিনঃ

ব্লগার থেকে কিভাবে টাকা ইনকাম করব?

অনলাইন থেকে ব্লগিং করে খুব সহজেই টাকা ইনকাম করা যায় তবে এজন্য আপনাকে প্রতিদিন যথেষ্ট সময় দিতে হবে। একটি ব্লগার ওয়েবসাইটকে প্রতিষ্ঠিত করতে আপনার অনেক ধৈর্য এবং সময়ের দরকার হবে। প্রথমেই আপনাকে একটি ওয়েবসাইট কিনতে হবে অথবা ব্লগার.কম থেকে একটি ফ্রি ওয়েবসাইট তৈরি করতে হবে। ফ্রি ওয়েবসাইট বানানো এবং ডোমেইন-হোস্টিং নিয়ে আমরা পরবর্তি আর্টিকেলে আলোচনা করব। প্রথমে আপনি ব্লগার.কম থেকে একটি ফ্রি ওয়েবসাইট তৈরি করবেন। আপনি যেই নিশ নিয়ে কাজ করবেন সেই অনুযায়ী একটি নাম দিবেন। যদি আপনি টেকনোলজি নিয়ে লেখালেখি করতে ভালোবাসেন তাহলে টেকনোলজি রিলেটেড একটি নাম দিবেন। আর যদি আপনার খাবার নিয়ে লেখালেখি করতে ভালো লাগে তাহলে খাবার নিয়েই ব্লগিং করবেন।

যাই হোক, ব্লগস্পটে একটা ব্লগসাইট খোলার সময় ব্লগারে বেশ কিছু ফ্রি টেমপ্লেট দেয়া থাকে। সেখান থেকে আপনার পছন্দমতো একটি টেমপ্লেট দিয়ে ওয়েবসাইট তৈরি করবেন। পছন্দ না হলে আপনি গুগলে সার্চ দিয়ে মনের মতো ফ্রি বা পেইড টেমপ্লেট ব্যবহার করতে পারবেন। নতুন অবস্থায় ফ্রি টেমপ্লেট দিয়ে শুরু করাই ভালো। টেমপ্লেট সেট করার পর মেনু এবং পেজ এগুলো কাস্টমাইজ করবেন। এরপর বেশি বেশি করে আর্টিকেল পোস্ট করবেন। সেই সাথে সাইটটির এসইও করবেন যাতে মানুষ সেটি গুগলে সার্চ করলে সহজেই খুঁজে পায়। আস্তে আস্তে আপনার সাইটে ভিজিটর আসা ‍শুরু হবে। আর যদি ডোমেইন হোস্টিং কিনে ওয়েবসাইট বানাতে চান তবে এর জন্য আপনাকে কিছু টাকা খরচ করতে হবে। আমি ডায়নাহোস্ট থেকে ৯৫০ টাকায় ডোমেইন কিনেছি এবং মাসিক ১৩৪ টাকার হোস্টিং কিনেছি। আপনি চাইলে এখানে থেকে ডায়নাহোস্ট এর ডোমেইন হোস্টিং কিনতে পারবেন।

শুধু মাত্র ব্লগার থেকে বেশ কয়েকটি উপায়ে ইনকাম করা যায়। আমি এখানে সহজ তিনটি পদ্ধতি আলোচনা করলাম।

গুগল অ্যাডসেন্স

অনলাইন থেকে ইনকামের জন্য যতগুলো পথ আছে তার মধ্যে সবচেয়ে সহজ হচ্ছে গুগল অ্যাডসেন্স থেকে ইনকাম। অ্যাডসেন্স শুধু ওয়েবসাইটের জন্যই জনপ্রিয় নয়, এটা ইউটিউব এবং অ্যাপস এর জন্যও জনপ্রিয়। শুধু অ্যাডসেন্স দিয়ে অনেকে মাসে লক্ষাধিক টাকা আয় করে। এর জন্য আপনাকে যথেষ্ট সময় দিতে হবে। আপনি ওয়েবসাইট থেকেও আয় করতে পারবেন।

 

আপনার ওয়েবসাইটে গুগল অ্যাডসেন্সের অ্যাড বসিয়ে সহজেই মাসে ২০-৩০ হাজার টাকা ইনকাম করতে পারবেন। এর জন্য অবশ্যই আপনার সাইটে ভালো মানের কন্টেন্ট থাকতে হবে। কোন ভিজিটর যদি আপনার সাইটে আসে আর যদি আপনার কন্টেন্ট তার ভালো লাগে তাহলে সে নিয়মিত আপনার সাইট ভিজিট করবে। তাকে ধরে রাখার জন্য ভালো মানের কন্টেন্ট লিখতে হবে। আপনার যদি লেখালেখির অভ্যাস থাকে তবে আজই শুরু করতে পারেন। কোন প্রকার কপি করা লেখা বা ছবি ব্যবহার করা যাবেনা। শতভাগ ইউনিক হতে হবে। কোথাও থেকে কপি করা কন্টেন্ট আপনার সাইটে পোস্ট করলে অ্যাডসেন্স তো পাবেনই না এবং আপনার ওয়েবসাইট গুগল-এ কখনো র‌্যাঙ্ক করবেনা। কাজেই কন্টেন্ট লেখার ক্ষেত্রে এই ব্যাপারগুলোতে গুরুত্ব দিতে হবে।

আপনি ভালো মানের কনটেন্ট লিখলে ভিজিটর বেশি আসবে এবং আপনার সাইট দ্রুত জনপ্রিয় হবে। আপনি বাংলা কন্টেন্ট দিয়েও শুরু করতে পারেন। তবে বাংলা কন্টেন্ট দিয়ে ইনকাম কম হয়। কারণ ওয়েবসাইটে বাংলা কন্টেন্ট থাকলে শুধু মাত্র বাংলাদেশী ভিজিটর আসে। আপনি যদি ইংরেজি কনটেন্ট লেখেন এবং বাহিরের ভিজিটর আসে সেই ক্ষেত্রে আপনি ভালো ইনকাম করতে পারবেন। আপনার সাইটে যখন অনেক কন্টেন্ট থাকবে এবং নিয়মিত প্রচুর ভিজিটর আসবে তখন অ্যাডসেন্স এর জন্য আবেদন করবেন।

অ্যাডসেন্স অ্যাপ্রোভ হলে আপনার সাইটে তাদের বিজ্ঞাপন প্রদর্শিত হবে। তখন শুরু হবে আপনার ইনকাম। আপনার অ্যাডসেন্স অ্যাকাউন্টে যখন ১০ ডলার হয়ে যাবে তখন অ্যাডসেন্স থেকে আপনার বর্তমান ঠিকানায় একটি পিন কোড পাঠানো হবে। সেই পিন কোড দিয়ে আপনার এডসেন্স ভেরিফাই করবেন। আপনার ১০০ ডলার হয়ে গেলে তখন গুগল অ্যাডসেন্স আপনার ব্যাংকে টাকা পাঠিয়ে দিবে। গুগল অ্যাডসেন্স অ্যাকাউন্ট এর জন্য এখানে ক্লিক করুন। আপনার এনআইডি অনুসারে সকল তথ্য দিয়ে রেজিস্ট্রেশন করবেন।

অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং

আপনি চাইলে অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং করেও টাকা ইনকাম করতে পারবেন। আপনার ওয়েবসাইটে বিভিন্ন কোম্পানীর পণ্য নিয়ে রিভিউ বা বিস্তারিত লিখবেন এবং সেখানে কোম্পানীর লিঙ্ক দিয়ে দিবেন। যখন কোন ভিজিটর আপনার ওয়েবসাইটে এসে সেই পণ্যটি ক্রয় করবে তখন আপনি কমিশন পাবেন। যদি আপনি টেকনোলজি নিয়ে লেখেন তাহলে আপনার লেখার মাঝে কোন কোম্পানির এফিলিয়েট লিংক দিয়ে দিবেন। সেই লিঙ্ক থেকে কেউ কোন পণ্য কিনলে আপনি কোম্পানি থেকে কমিশন পাবেন। অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং করে মাসে ৩০-৪০ হাজার টাকা ইনকাম করতে পারবেন। অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং এর জন্য অ্যামাজন, আলীবাবা, আলী এক্সপ্রেস, ক্লিক ব্যাংক এবং ইবে শ্রেষ্ঠ।

এই কোম্পানীগুলো পেপাল, পেয়োনীয়ার, মাস্টাকার্ড, ভিসা কার্ড এবং তাদের লোকাল ব্যাংকের মাধ্যমে টাকা পে করে। তবে অ্যামাজন এর টাকা সরাসরি বাংলাদেশী ব্যাংকে আনা যায়। আপনি যদি নতুন হয়ে থাকেন তবে অ্যামাজন অ্যাফিলিয়েট দিয়ে শুরু করতে পারেন। এটা অন্যগুলোর চেয়ে সহজ এবং সহজে অ্যাপ্রভ পাওয়া যায়। আপনার কাছে এগুলো ঝামেলা মনে হলে বাংলাদেশী কোম্পানীর অ্যাফিলিয়েট করেও ইনকাম করতে পারবেন। তবে বিডিশপ এর অ্যাফিলিয়েট করে সহজেই আপনি টাকা ইনকাম করতে পারবেন। এটা যেহেতু বাংলাদেশী কোম্পানী তাই আপনি সহজেই আপনার টাকা বিকাশ/রকেটে নিতে পারবেন।

স্পন্সর

বর্তমানে এটি একটি ইনকামের সহজ উপায়। আপনারা হয়তো দেখছেন ইউটিউবে অনেকে ভিডিওর শুরুতে কোন কোম্পানীর প্রশংসা করা হয়। অনেক সময় বলা হয় আজকের ভিডিওটি স্পন্সর করেছে অমুক কোম্পানী। এভাবে স্পন্সর করেও আপনি ইনকাম করতে পারবেন। তবে আপনার সাইটের জনপ্রিয়তা না থাকলে হবেনা। আপনার ওয়েবসাইট জনপ্রিয়তা অর্জন করলে বিভিন্ন রকম বিজ্ঞাপন প্রদর্শন করিয়ে ইনকাম করতে পারবেন।

বাংলাদেশের অনেক জনপ্রিয় ওয়েবসাইটে গুগল অ্যাডসেন্স ছাড়াও নিজেরা অ্যাড তৈরি করে টাকা ইনকাম করে। অনেক কোম্পানী তাদের প্রচার করার জন্য আপনার ওয়েবসাইটে বিজ্ঞাপন দিবে। অনেক কোম্পানী তাদের পণ্য বিক্রয়ের জন্য সেই পণ্যের রিভিউ আপনার ওয়েবসাইটে পোস্ট করতে বলবে। আপনি যদি পোস্ট করেন তবে তাদের পণ্যটি সহজেই বিক্রি হবে। এর জন্য আপনাকে তারা নির্দিষ্টি পরিমাণ টাকা দিবে। আপনি চাইলে কোন কোম্পানির প্রশংসা করে তাদের ছবি দিয়ে আর্টিকেল লিখে টাকা নিতে পারেন।

এগুলো ছাড়াও ব্লগার থেকে টাকা ইনকামের আরও কিছু উপায় থাকলেও এগুলো বেশ সহজ। আপনি সহজেই এই কাজের মাধ্যমে প্যাসিভ ইনকাম জেনারেট করতে পারবেন। আমাদের লেখাগুলো আপনার যদি ভালো লেগে থাকে তবে শেয়ার করবেন। কোন মতামত থাকলে কমেন্ট বক্সে জানাবেন। ধন্যবাদ।

আরও পড়ুনঃ অনলাইন থেকে টাকা আয় করার সহজ উপায় জেনে নিন

1 COMMENT

  1. আপনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ। আশা করি সবসময় পাশে থাকবেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here