গৃহ প্রবন্ধের সৃজনশীল প্রশ্ন

গৃহ প্রবন্ধের সৃজনশীল প্রশ্ন

১। কুয়াশার শাদা পর্দা দোলাতে দোলাতে আবার আমি ঘরে ফিরবো। শিশিরে আমার পাজামা ভিজে যাবে।বাসি বাসন হাতে আম্মা আমাকে দেখে হেসে ফেলবেন। ভালোই হলো তোর ফিরে আসা। তুই না থাকলে ঘরবাড়ি একেবারে কেমন শূন্য হয়ে যায়।

ক. রোকেয়া সাখাওয়াত হোসেনের পিতার নাম কী?

খ. রাজবাড়ির রানির বর্ণনা দাও।

গ. উদ্দীপকের সঙ্গে ‘গৃহ’ প্রবন্ধের সাদৃশ্য কোথায়?

ঘ. উদ্দীপকটি আলোচ্য প্রবন্ধের আংশিক ভাব প্রকাশ করে মাত্র- মন্তব্যটির যথার্থতা আলোচনা কর।

২। ঘর আর ঘরণীর দিকে তাকাবার সময় নেই মোতালেফের।… নগদ পঞ্চাশ টাকা। টাকার ওপর হাত বুলাতে বুলাতে এলেম বললে ‘কিন্তু এখন আর টাকা নিয়া আমি কি করব মেঞা তুমি তো শোনলাম নিকা কইরা নিছ… মোতালেফ মুচকি হাসল। বলল, গাছে রস যদ্দিন আছে, মাজুখাতুনও তদ্দিন আছে আমার ঘরে। দক্ষিণা বাতাস খেললেই সব যা হইয়া যাবে উহুড়া।

ক. রোকেয়া সাখাওয়াত কত সালে মৃত্যুবরণ করেন?

খ. “ক্ষমতাশালী পুরুষের বাহাদুরি” বলতে কী বোঝানো হয়েছে।

গ. উদ্দীপকের কোন বিষয়টি ‘গৃহ’ প্রবন্ধে প্রকাশ পেয়েছে?

ঘ. উদ্দীপকটি ‘গৃহ’ প্রবন্ধের অংশিক ভাব ধারণ করে মাত্র- মন্তব্যটির যথার্থতা বিচার কর।

গৃহ প্রবন্ধের সৃজনশীল প্রশ্ন

৩। দাও হেন বর সাগরের মত

গম্ভীর যার বাণী,

আন-ভুবনের অজানা সুরভি

পরানে মিলাবে আনি,

দাও হেন স্বামী যে আমার পানে

চাহিবে সহজ সুখে, যে চোখে শ্যামল প্রান্তর চায়

ঊষার অরুণ মুখে,

ক. অনেকের মতে চক্ষু কীসের দর্পণ?

খ. ‘বলিতে আপন দুঃখ পরনিন্দা হয়’- একথা বলার কারণ কী?

গ. উদ্দীপকের সাথে ‘গৃহ’ রচনার বৈসাদৃশ্যপূর্ণ দিকটি ব্যাখ্যা কর।

ঘ. উদ্দীপকটি যেন প্রাবন্ধিকের মূল চাওয়া’- মন্তব্যটির যথার্থতা বিচার কর।

 

৪। রাজপ্রাসাদগুলি পরিদর্শন করবার সময় লক্ষ্য করেছি সেগুলি কেবল রাজপ্রাসাদ নয়, সেগুলির প্রত্যেকটি একটি পুরুষ ও একটি নারীর দুঃখ-সুখের নীড়- এক একটি ‘home’। ইংরেজী ‘home’ কথাটির ভারতীয় কোনো প্রতিশব্দ নেই, কেননা ‘home’ কেবল গৃহ নয়, একটি নারীর ও একটি পুরুষের কাঠপাথরের রূপান্তরিত প্রেম।

ক.. ‘সুলতানার স্বপ্ন’ কী ধরনের রচনা?

খ. প্রবন্ধে যে রাজবাড়ির কথা বলা হয়েছে, তার বর্ণনা দাও।

গ. উদ্দীপকটি ‘গৃহ’ প্রবন্ধের সঙ্গে কীভাবে সাদৃশ্যপূর্ণ?

ঘ. উদ্দীপকটি আলোচ্য প্রবন্ধের একটি অংশ মাত্র- মন্তব্যটি বিশ্লেষণ কর।

৫। ঐ মহারাজার নাম আমার জানা নেই। মাকে জিজ্ঞেস করেছিলাম, তিনিও বলতে পারলেন না। তবে তিনি যে অত্যন্ত ক্ষমতাশালী ছিলেন তার অসংখ্য প্রমাণ এই বাড়িতে ছড়ানো। জঙ্গলের ভেতর বাড়ি। সেই বাড়িতে ইলেকট্রিসিটির ব্যবস্থা করার জন্য তাঁর ছিল নিজস্ব জেনারেটর। দাওয়াতের চিঠি ছেপে পাঠানোর জন্যে মিনি সাইজের একটা ছাপাখানা। বাবাকে অসংখ্যবার বলতে শুনেছি- মহারাজার রুচি দেখে মুগ্ধ হতে হয়। আহা, কত বই! কত বিচিত্র ধরনের বই!

ক. কার স্ত্রীর অলঙ্কারের অভাব নেই।

খ. “সেখানে যেমন এক পাল ছাগল আছে, হংস কুক্কুট আছে, সেইরূপ একদল স্ত্রীলোকও আছেন”- ব্যাখ্যা কর।

গ. উদ্দীপকের সঙ্গে ‘গৃহ’ প্রবন্ধের কোন দিকটির সাদৃশ্য দেখা যায়? ঘ. “উদ্দীপকটি ‘গৃহ’ প্রবন্ধের একটি দিকের প্রতিফলন মাত্র”- তোমার মতামত দাও।

 

৬। উদ্দীপক ১ ১: আশা দেখিল, বিনোদিনী সর্বপ্রকার গৃহকর্মে সুনিপুণ- প্রভুত্ব যেন তাহার পক্ষে নিতান্ত সহজ স্বভাবসিদ্ধ- দাস-দাসীদিগকে কর্মে নিয়োগ করিতে, ভর্ৎসনা করিতে ও আদেশ করিতে সে লেশমাত্র কুণ্ঠিত নহে। এই সমস্ত দেখিয়া আশা বিনোদিনীর কাছে নিজেকে নিতান্ত ক্ষুদ্র মনে করিল। উদ্দীপক ২: মহেন্দ্র একদিন বিরক্ত হইয়া তাহার মাকে ডাকিয়া কহিল, “একি ভালো। হইতেছে? পরের ঘরের যুবতী বিধবাকে আনিয়া একটা দায় ঘাড়ে করিবার দরকার কী। আমার তো ইহাতে মত নাই- কী জানি কখন কী সংকট ঘটিতে পারে।”

ক. রোকেয়া সাখাওয়াত হোসেন কোন গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন?

খ. আমার ভগ্নী আমার নিকট অবশ্য আসিবেন’- উক্তিটি কার সম্পর্কে করা হয়েছে? ব্যাখ্যা কর।

গ. উদ্দীপক ১-এর বিনোদিনীর সঙ্গে ‘গৃহ’ প্রবন্ধের নারীদের বৈসাদৃশ্য কিসে?

ঘ. “উদ্দীপক ২-এ ‘গৃহ’ প্রবন্ধে বর্ণিত বিধবার প্রতি সমাজের হীন দৃষ্টির প্রতিফলন দেখা গেছে”- তোমার উত্তরের পক্ষে যুক্তি দেখাও।

 

৭। “আমি গত ১৯২৪ সনে আমার দুই নাতিনের বিবাহোপলক্ষে আরায় গিয়াছিলাম। কিন্তু 8 আমি আরা শহরটার সেই বাড়ীখানা এবং আকাশ ছাড়া আর কিছুই দেখিতে পাই নাইর আমার ‘মেয়েকে’ (অর্থাৎ মেয়ের মৃত্যুর পর জামাতার দ্বিতীয় পক্ষের স্ত্রীকে) সেই কথা বলায় তিনি অতি মিনতি করিয়া আমাকে বলিলেন, “আম্মা, আপনি যদি দয়া করিয়া আপনার জুতার বরকতে শহরটা একটু দেখিয়া শহর দেখিতে চান, তবে আমরাও আপনা লইব। আমরা সাত বৎসর হইতে এখানে আছি, কিন্তু শহরের কিছুই দেখি নাই।”

ক. রমাসুন্দরীর স্বামীর সকল সম্পত্তির বর্তমান অধীশ্বর কে?

খ. ‘জানি না কি পাপে রানি হয়েছি!’ ব্যাখ্যা কর।

গ. উদ্দীপকের লেখকের মেয়ের জীবন ‘গৃহ’ প্রবন্ধের কাদের জীবনের প্রতিফলিত রূপ?

ঘ. “উদ্দীপকটি ‘গৃহ’ প্রবন্ধের আংশিক ভাবের ধারক”- মন্তব্যটি বিশ্লেষণ কর।

 

৮। মমতা তার স্বামীর সাথে ভাড়া বাড়িতে থাকে। সে চায় তার স্বামী একটি বাড়ি তৈরি করুক। কারণ সে নিজের বাড়িতে থাকার সুখ অনুভব করতে চায়। কেননা নিজের বাড়ি শুধু বাড়ি নয় এর সাথে জড়িয়ে থাকে অনেক সুখ-দুঃখ, ভালো লাগা-মন্দ লাগা ও ভালোবাসা।

ক. ‘সুলতানার স্বপ্ন’ কী ধরনের রচনা?

খ. কক্ষগুলি ‘অসূর্য্যম্পশ্য’ বলিয়া বোধ হইল কেন?

গ . উদ্দীপকটি ‘গৃহ’ প্রবন্ধের সঙ্গে কীভাবে সাদৃশ্যপূর্ণ?

ঘ. উদ্দীপকটি আলোচ্য প্রবন্ধের একটি অংশ মাত্র- মন্তব্যটি বিশ্লেষণ কর।

 

৯। কবিরাজ নয়, কবি।নিমগাছটার ইচ্ছে করতে লাগল লোকটার সঙ্গে চলে যায়। কিন্তু পারল না। মাটির ভিতরে শিকড় অনেক দূরে চলে গেছে। বাড়ির পিছনে আবর্জনার স্তূপের মধ্যেই দাঁড়িয়ে রইল সে।ওদের বাড়ির গৃহকর্মা-নিপুণা লক্ষ্মী বউটার ঠিক এক দশা।

ক. প্রাবন্ধিক একবার কোন জেলার নিকটবর্তী শহরে বেড়াতে গিয়েছিলেন?

খ. “তাঁহাকে সতিনী জ্বালায় দগ্ধ করিতে লাগিলেন।”- ব্যাখ্যা কর।

গ. উদ্দীপকের সঙ্গে ‘গৃহ’ প্রবন্ধের কোন দিকটির সাদৃশ্য রয়েছে?

ঘ. সাদৃশ্যপূর্ণ দিকটিই কি ‘গৃহ’ প্রবন্ধের একমাত্র প্রতিপাদ্য? তোমার উত্তরের পক্ষে যুক্তি দেখাও।

 

১০। বিশ্রী নোংরা গলি। কে যে ঠাট্টা করে এই যমালয়ের পথটার নাম জীবনময় লেন রেখেছিল! গলিটা আস্ত ইট দিয়ে বাঁধানো, পায়ে পায়ে ক্ষয় হয়ে গেছে। দুদিকের বাড়ির চাপে অন্ধকার, এখানে ওখানে আবর্জনা জমা করা আর একটা দূষিত চাপা গন্ধ। আমি সঙ্কুচিত হয়ে তার সঙ্গে চলতে লাগলাম। সে বলল, মনে হচ্ছে পাতালে চলেছ, না?

ক. জমিলাদের বংশগৌরব কী?

খ. প্রবন্ধে কেন রমার কপালের দোষের কথা বলা হয়েছে? বুঝিয়ে লেখ।

গ . উদ্দীপকের বিবরণের সঙ্গে ‘গৃহ’ প্রবন্ধের কোন অংশের সাদৃশ্য দেখা যায়?

ঘ . “উদ্দীপকটি ‘গৃহ’ প্রবন্ধের সার্বিক নয়, বরং একটি বিশেষ দিকের ধারক”- বিশ্লেষণ কর।

১১। সে-যুগ হয়েছে বাসি,যে যুগে পুরুষ দাস ছিল না ক, নারীরা আছিল দাসী! বেদনার যুগ, মানুষের যুগ, সাম্যের যুগ আজি, কেহ রহিবে না বন্দি কাহারও, উঠিছে ডঙ্কা বাজি! নর যদি রাখে নারীরে বন্দি, তবে এর পরযুগে আপনারি রচা অই কারাগারে পুরুষ মরিবে ভুগে।যুগের ধর্ম এই- পীড়ন করিলে সে পীড়ন এসে পীড়া দেবে তোমাকেই!

ক. কলিমের বাড়ি কোথায়?

খ. প্রাবন্ধিক কেন রানিকে দেখে হতাশ হলেন?

গ. উদ্দীপকের সঙ্গে ‘গৃহ’ প্রবন্ধের কোন দিকটির সাদৃশ্য রয়েছে?

ঘ. “গৃহ’ প্রবন্ধে রোকেয়া সাখাওয়াত হোসেন নারীর প্রতি সমাজের যে বৈষম্য ও অবহেলার বর্ণনা দিয়েছেন, উদ্দীপকে সেই বৈষম্য ও অবগৃহ প্রবন্ধের সৃজনশীল প্রশ্ন

 

১। কুয়াশার শাদা পর্দা দোলাতে দোলাতে আবার আমি ঘরে ফিরবো। শিশিরে আমার পাজামা ভিজে যাবে।বাসি বাসন হাতে আম্মা আমাকে দেখে হেসে ফেলবেন। ভালোই হলো তোর ফিরে আসা। তুই না থাকলে ঘরবাড়ি একেবারে কেমন শূন্য হয়ে যায়।

ক. রোকেয়া সাখাওয়াত হোসেনের পিতার নাম কী?

খ. রাজবাড়ির রানির বর্ণনা দাও।

গ. উদ্দীপকের সঙ্গে ‘গৃহ’ প্রবন্ধের সাদৃশ্য কোথায়?

ঘ. উদ্দীপকটি আলোচ্য প্রবন্ধের আংশিক ভাব প্রকাশ করে মাত্র- মন্তব্যটির যথার্থতা আলোচনা কর।

২। ঘর আর ঘরণীর দিকে তাকাবার সময় নেই মোতালেফের।… নগদ পঞ্চাশ টাকা। টাকার ওপর হাত বুলাতে বুলাতে এলেম বললে ‘কিন্তু এখন আর টাকা নিয়া আমি কি করব মেঞা তুমি তো শোনলাম নিকা কইরা নিছ… মোতালেফ মুচকি হাসল। বলল, গাছে রস যদ্দিন আছে, মাজুখাতুনও তদ্দিন আছে আমার ঘরে। দক্ষিণা বাতাস খেললেই সব যা হইয়া যাবে উহুড়া।

ক. রোকেয়া সাখাওয়াত কত সালে মৃত্যুবরণ করেন?

খ. “ক্ষমতাশালী পুরুষের বাহাদুরি” বলতে কী বোঝানো হয়েছে।

গ. উদ্দীপকের কোন বিষয়টি ‘গৃহ’ প্রবন্ধে প্রকাশ পেয়েছে?

ঘ. উদ্দীপকটি ‘গৃহ’ প্রবন্ধের অংশিক ভাব ধারণ করে মাত্র- মন্তব্যটির যথার্থতা বিচার কর।

 

৩। দাও হেন বর সাগরের মত

গম্ভীর যার বাণী,

আন-ভুবনের অজানা সুরভি

পরানে মিলাবে আনি,

দাও হেন স্বামী যে আমার পানে

চাহিবে সহজ সুখে, যে চোখে শ্যামল প্রান্তর চায়

ঊষার অরুণ মুখে,

ক. অনেকের মতে চক্ষু কীসের দর্পণ?

খ. ‘বলিতে আপন দুঃখ পরনিন্দা হয়’- একথা বলার কারণ কী?

গ. উদ্দীপকের সাথে ‘গৃহ’ রচনার বৈসাদৃশ্যপূর্ণ দিকটি ব্যাখ্যা কর।

ঘ. উদ্দীপকটি যেন প্রাবন্ধিকের মূল চাওয়া’- মন্তব্যটির যথার্থতা বিচার কর।

 

৪। রাজপ্রাসাদগুলি পরিদর্শন করবার সময় লক্ষ্য করেছি সেগুলি কেবল রাজপ্রাসাদ নয়, সেগুলির প্রত্যেকটি একটি পুরুষ ও একটি নারীর দুঃখ-সুখের নীড়- এক একটি ‘home’। ইংরেজী ‘home’ কথাটির ভারতীয় কোনো প্রতিশব্দ নেই, কেননা ‘home’ কেবল গৃহ নয়, একটি নারীর ও একটি পুরুষের কাঠপাথরের রূপান্তরিত প্রেম।

ক.. ‘সুলতানার স্বপ্ন’ কী ধরনের রচনা?

খ. প্রবন্ধে যে রাজবাড়ির কথা বলা হয়েছে, তার বর্ণনা দাও।

গ. উদ্দীপকটি ‘গৃহ’ প্রবন্ধের সঙ্গে কীভাবে সাদৃশ্যপূর্ণ?

ঘ. উদ্দীপকটি আলোচ্য প্রবন্ধের একটি অংশ মাত্র- মন্তব্যটি বিশ্লেষণ কর।

৫। ঐ মহারাজার নাম আমার জানা নেই। মাকে জিজ্ঞেস করেছিলাম, তিনিও বলতে পারলেন না। তবে তিনি যে অত্যন্ত ক্ষমতাশালী ছিলেন তার অসংখ্য প্রমাণ এই বাড়িতে ছড়ানো। জঙ্গলের ভেতর বাড়ি। সেই বাড়িতে ইলেকট্রিসিটির ব্যবস্থা করার জন্য তাঁর ছিল নিজস্ব জেনারেটর। দাওয়াতের চিঠি ছেপে পাঠানোর জন্যে মিনি সাইজের একটা ছাপাখানা। বাবাকে অসংখ্যবার বলতে শুনেছি- মহারাজার রুচি দেখে মুগ্ধ হতে হয়। আহা, কত বই! কত বিচিত্র ধরনের বই!

ক. কার স্ত্রীর অলঙ্কারের অভাব নেই।

খ. “সেখানে যেমন এক পাল ছাগল আছে, হংস কুক্কুট আছে, সেইরূপ একদল স্ত্রীলোকও আছেন”- ব্যাখ্যা কর।

গ. উদ্দীপকের সঙ্গে ‘গৃহ’ প্রবন্ধের কোন দিকটির সাদৃশ্য দেখা যায়? ঘ. “উদ্দীপকটি ‘গৃহ’ প্রবন্ধের একটি দিকের প্রতিফলন মাত্র”- তোমার মতামত দাও।

 

৬। উদ্দীপক ১ ১: আশা দেখিল, বিনোদিনী সর্বপ্রকার গৃহকর্মে সুনিপুণ- প্রভুত্ব যেন তাহার পক্ষে নিতান্ত সহজ স্বভাবসিদ্ধ- দাস-দাসীদিগকে কর্মে নিয়োগ করিতে, ভর্ৎসনা করিতে ও আদেশ করিতে সে লেশমাত্র কুণ্ঠিত নহে। এই সমস্ত দেখিয়া আশা বিনোদিনীর কাছে নিজেকে নিতান্ত ক্ষুদ্র মনে করিল। উদ্দীপক ২: মহেন্দ্র একদিন বিরক্ত হইয়া তাহার মাকে ডাকিয়া কহিল, “একি ভালো। হইতেছে? পরের ঘরের যুবতী বিধবাকে আনিয়া একটা দায় ঘাড়ে করিবার দরকার কী। আমার তো ইহাতে মত নাই- কী জানি কখন কী সংকট ঘটিতে পারে।”

ক. রোকেয়া সাখাওয়াত হোসেন কোন গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন?

খ. আমার ভগ্নী আমার নিকট অবশ্য আসিবেন’- উক্তিটি কার সম্পর্কে করা হয়েছে? ব্যাখ্যা কর।

গ. উদ্দীপক ১-এর বিনোদিনীর সঙ্গে ‘গৃহ’ প্রবন্ধের নারীদের বৈসাদৃশ্য কিসে?

ঘ. “উদ্দীপক ২-এ ‘গৃহ’ প্রবন্ধে বর্ণিত বিধবার প্রতি সমাজের হীন দৃষ্টির প্রতিফলন দেখা গেছে”- তোমার উত্তরের পক্ষে যুক্তি দেখাও।

 

৭। “আমি গত ১৯২৪ সনে আমার দুই নাতিনের বিবাহোপলক্ষে আরায় গিয়াছিলাম। কিন্তু 8 আমি আরা শহরটার সেই বাড়ীখানা এবং আকাশ ছাড়া আর কিছুই দেখিতে পাই নাইর আমার ‘মেয়েকে’ (অর্থাৎ মেয়ের মৃত্যুর পর জামাতার দ্বিতীয় পক্ষের স্ত্রীকে) সেই কথা বলায় তিনি অতি মিনতি করিয়া আমাকে বলিলেন, “আম্মা, আপনি যদি দয়া করিয়া আপনার জুতার বরকতে শহরটা একটু দেখিয়া শহর দেখিতে চান, তবে আমরাও আপনা লইব। আমরা সাত বৎসর হইতে এখানে আছি, কিন্তু শহরের কিছুই দেখি নাই।”

ক. রমাসুন্দরীর স্বামীর সকল সম্পত্তির বর্তমান অধীশ্বর কে?

খ. ‘জানি না কি পাপে রানি হয়েছি!’ ব্যাখ্যা কর।

গ. উদ্দীপকের লেখকের মেয়ের জীবন ‘গৃহ’ প্রবন্ধের কাদের জীবনের প্রতিফলিত রূপ?

ঘ. “উদ্দীপকটি ‘গৃহ’ প্রবন্ধের আংশিক ভাবের ধারক”- মন্তব্যটি বিশ্লেষণ কর।

 

৮। মমতা তার স্বামীর সাথে ভাড়া বাড়িতে থাকে। সে চায় তার স্বামী একটি বাড়ি তৈরি করুক। কারণ সে নিজের বাড়িতে থাকার সুখ অনুভব করতে চায়। কেননা নিজের বাড়ি শুধু বাড়ি নয় এর সাথে জড়িয়ে থাকে অনেক সুখ-দুঃখ, ভালো লাগা-মন্দ লাগা ও ভালোবাসা।

ক. ‘সুলতানার স্বপ্ন’ কী ধরনের রচনা?

খ. কক্ষগুলি ‘অসূর্য্যম্পশ্য’ বলিয়া বোধ হইল কেন?

গ . উদ্দীপকটি ‘গৃহ’ প্রবন্ধের সঙ্গে কীভাবে সাদৃশ্যপূর্ণ?

ঘ. উদ্দীপকটি আলোচ্য প্রবন্ধের একটি অংশ মাত্র- মন্তব্যটি বিশ্লেষণ কর।

 

৯। কবিরাজ নয়, কবি।নিমগাছটার ইচ্ছে করতে লাগল লোকটার সঙ্গে চলে যায়। কিন্তু পারল না। মাটির ভিতরে শিকড় অনেক দূরে চলে গেছে। বাড়ির পিছনে আবর্জনার স্তূপের মধ্যেই দাঁড়িয়ে রইল সে।ওদের বাড়ির গৃহকর্মা-নিপুণা লক্ষ্মী বউটার ঠিক এক দশা।

ক. প্রাবন্ধিক একবার কোন জেলার নিকটবর্তী শহরে বেড়াতে গিয়েছিলেন?

খ. “তাঁহাকে সতিনী জ্বালায় দগ্ধ করিতে লাগিলেন।”- ব্যাখ্যা কর।

গ. উদ্দীপকের সঙ্গে ‘গৃহ’ প্রবন্ধের কোন দিকটির সাদৃশ্য রয়েছে?

ঘ. সাদৃশ্যপূর্ণ দিকটিই কি ‘গৃহ’ প্রবন্ধের একমাত্র প্রতিপাদ্য? তোমার উত্তরের পক্ষে যুক্তি দেখাও।

 

১০। বিশ্রী নোংরা গলি। কে যে ঠাট্টা করে এই যমালয়ের পথটার নাম জীবনময় লেন রেখেছিল! গলিটা আস্ত ইট দিয়ে বাঁধানো, পায়ে পায়ে ক্ষয় হয়ে গেছে। দুদিকের বাড়ির চাপে অন্ধকার, এখানে ওখানে আবর্জনা জমা করা আর একটা দূষিত চাপা গন্ধ। আমি সঙ্কুচিত হয়ে তার সঙ্গে চলতে লাগলাম। সে বলল, মনে হচ্ছে পাতালে চলেছ, না?

ক. জমিলাদের বংশগৌরব কী?

খ. প্রবন্ধে কেন রমার কপালের দোষের কথা বলা হয়েছে? বুঝিয়ে লেখ।

গ . উদ্দীপকের বিবরণের সঙ্গে ‘গৃহ’ প্রবন্ধের কোন অংশের সাদৃশ্য দেখা যায়?

ঘ . “উদ্দীপকটি ‘গৃহ’ প্রবন্ধের সার্বিক নয়, বরং একটি বিশেষ দিকের ধারক”- বিশ্লেষণ কর।

১১। সে-যুগ হয়েছে বাসি,যে যুগে পুরুষ দাস ছিল না ক, নারীরা আছিল দাসী! বেদনার যুগ, মানুষের যুগ, সাম্যের যুগ আজি, কেহ রহিবে না বন্দি কাহারও, উঠিছে ডঙ্কা বাজি! নর যদি রাখে নারীরে বন্দি, তবে এর পরযুগে আপনারি রচা অই কারাগারে পুরুষ মরিবে ভুগে।যুগের ধর্ম এই- পীড়ন করিলে সে পীড়ন এসে পীড়া দেবে তোমাকেই!

ক. কলিমের বাড়ি কোথায়?

খ. প্রাবন্ধিক কেন রানিকে দেখে হতাশ হলেন?

গ. উদ্দীপকের সঙ্গে ‘গৃহ’ প্রবন্ধের কোন দিকটির সাদৃশ্য রয়েছে?

ঘ. “গৃহ’ প্রবন্ধে রোকেয়া সাখাওয়াত হোসেন নারীর প্রতি সমাজের যে বৈষম্য ও অবহেলার বর্ণনা দিয়েছেন, উদ্দীপকে সেই বৈষম্য ও অবহেলা নিরসনের আশাবাদ ব্যক্ত হয়েছে”- তোমার উত্তরের পক্ষে যুক্তি দেখাও।হেলা নিরসনের আশাবাদ ব্যক্ত হয়েছে”- তোমার উত্তরের পক্ষে যুক্তি দেখাও।

কর্তৃত্ব ও দায়িত্বের ভারসাম্য বিধান করতে হয় কেন?